কারি অ্যাওয়ার্ড ২৫ নভেম্বর লন্ডন মাতাবে

75

ঢাকা: অস্কারখ্যাত ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের ১৫তম রাজকীয় আয়োজন হতে যাচ্ছে ২৫ নভেম্বর (সোমবার)। বৃটিশ জিনিয়াস সাইটে বাটার্সি পার্কের দৃষ্টিনন্দন ভেন্যুতে হবে এই অনুষ্ঠান। স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড উইনার আয়োজকদের আন্তর্জাতিক মানের পরিকল্পনা মোতাবেক এর সব প্রস্তুতি চলছে। মান ও সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য অনুষ্ঠানস্থলে চলছে রিহার্সেলও।

শুক্রবার ( ২২ নভেম্বর) কারি অ্যাওয়ার্ড আয়োজকদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অ্যাওয়ার্ডের প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণকারীদের না জানিয়ে রেস্টুরেন্টগুলো ঘুরে ঘুরে দেখছেন জুরিবোর্ডের সদস্যরা। নানারকম নান্দনিকতার মিশেলে সাজানো এসব রেস্টুরেন্টের খাবার পরিবেশনা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, হেলথ অ্যান্ড সেফটি ইত্যাদি তলিয়ে দেখছেন তারা।

ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের আয়োজকরা একের পর এক আইডিয়া উদ্ভাবন করে চলেছেন, তাদের ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় নতুনত্ব সৃষ্টির জন্য। গত ১৪ বছর ধরে এনাম আলী এমবিই কারিশিল্পকে একটি অভিজাত শিল্পে পরিণত করার লক্ষে বহুমুখী প্রয়াস অব্যাহত রেখেছেন। তাই তাকে বলা হয় আধুনিক কারি শিল্পের অগ্রদূত। আর ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ড এখন অস্কারখ্যাত। রাজকীয় এই অনুষ্ঠানে ব্রিটেনের মূলধারার সাংবাদিক, খ্যাতিমান ব্যবসায়ী, টিভি ও ফিল্ম ব্যক্তিত্ব, ব্রিটিশ রাজ পরিবারের সদস্য, পার্লামেন্ট সদস্য এমনকি মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরাও আগ্রহভরে অংশগ্রহণ করেন।

আয়োজকরা জানান, বর্তমান ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ২০১২ সালে লন্ডনের মেয়র হিসেবে অংশ নিয়ে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, আজ তা কারি ইন্ডাস্ট্রির জন্য নেয়ামতে পরিণত হয়েছে। এছাড়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনের সঙ্গে এনাম আলী এমবিই’র সখ্য সর্বজন বিদিত।

কারি অ্যাওয়ার্ডে এসে ডেভিড ক্যামেরুন এত বড় আয়োজনের অকপট প্রশংসা করে এই অ্যাওয়ার্ডকে বলেছিলেন কারি অস্কার। যৌক্তিক কারণে উপস্থিত সব বাংলাদেশি এতে গৌরবান্বিত হয়েছেন। এরপর সালোয়ার-কামিজ পরে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে। আর ডাচেস অব ইয়র্ক সারাহ ফার্গুসনের হীরা খচিত পাদুকার সঙ্গে একেবারে বাঙালি বধূর সাজে শাড়ি পরে লাল গালিচায় হাঁটার স্মৃতি দর্শকদের হৃদয়ে রয়েছে এখনও অমলিন।

আইটিএন নিউজ প্রডাকশনের অনুসন্ধানে সারাবিশ্বে ৪৩৪ মিলিয়ন মানুষের কাছে পৌঁছা ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডে ব্রিটেনের সেরা রেস্টুরেন্টগুলোকে ১১টি রিজিওনে পুরস্কৃত করা হয়। প্রায় আট ঘণ্টার এ আসরে থাকে বিশ্বমানের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। প্রতিবারই ভিন্ন ভিন্ন থিমকে সামনে রেখে অনুষ্ঠান সাজানো হয়। এবারে তুলে ধরা হবে নিউইয়র্ক ব্রডওয়ের সংস্কৃতি। ইন্টারন্যাশনাল কোরিওগ্রাফার জাস্টিন আলীর তত্ত্বাবধানে বিশ্বমানের লাইভ এন্টারটেনমেন্টসহ নতুন কিছু দেখা যাবে ১৫তম কারি অ্যাওয়ার্ডে।