আওয়ামীলীগে অগণতান্ত্রিকপন্থায় কমিটি গঠনের প্রতিবাদে সাংসদ কাজী কেরামত আলী’র সংবাদ সম্মেলন

603
রাজবাড়ী  প্রতিনিধি// সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক, স্বেচ্ছাচারিতা এবং গঠনতন্ত্রকে উপেক্ষা করে একতরফা ভাবে রাজবাড়ীতে আওয়ামী লীগের ইউনিট কমিটিগুলো গঠনের প্রতিবাদে আজ শনিবার  রাজবাড়ী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী এক সাংবাদিক সম্মেলন করেছে।
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের ব্যানারে স্থানীয় একটি চাইনিজ রেস্তোরায় এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে যাওয়ার মুখে একদল উশৃঙ্খল যুবক সাংসদ কাজী কেরামত আলীকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেছে বলেও অভিযোগ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও  জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি কাজী কেরামত আলী। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার, রাজবাড়ী পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মহম্মদ আলী চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আকবর আলী মর্জি, হেদায়েত আলী সোহরাব, যুগ্ম সম্পাদক অ্যড. রফিকুল ইসলাম, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মহসিন উদ্দিন বতু, কোষাধ্যক্ষ আজগর আলী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এসএম নওয়াব আলী, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমজাদ হোসেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আবুল হোসেন শিকদার, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রাকিবুল ইসলাম পিয়ালসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে সাংসদ কাজী কেরামত আলী বলেন, কাউন্সিলের দিন তারিখ, কাউন্সিলর, ডেলিগেটস তালিকা তৈরী না করে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিল্লুল হাকিম ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে জামাত, বিএনপি , ফ্রিডম পার্টি ও অন্যান্য দল থেকে আগত হাইব্রীডদের নিয়ে নেতা নির্বাচন করছেন। যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী। যেসব নেতাকর্মী এর প্রতিবাদ করেছেন তারা সংগঠন থেকে বহিষ্কার ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এসব জটিলতার কারণে এবং অগঠনতান্ত্রিক কার্যকলাপের বিষয়ে দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে অবগত করা হলে তিনি রাজবাড়ী জেলার সর্বস্তরের সম্মেলন জাতীয় কাউন্সিলের আগে না করার নির্দেশ দেন।
পরবর্তীতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি  জিল্লুল হাকিম ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সাথে দেখা করলে উভয়পক্ষকে সমঝোতা করে জেলা আওয়ামী লীগের মিটিং ডেকে কাউন্সিলর ও ডেলিগেট ঠিক করে কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা দেয়ার নির্দেশনা দেন। সে নির্দেশনা উপেক্ষা করে তাদের ইচ্ছেমতো কাউন্সিলর তালিকা করে উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করেছেন। কাউন্সিলর তালিকায় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকদের কাউন্সিলর করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি।
লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, যুদ্ধাপরাধী মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি বাচ্চু রাজাকারকে রাজবাড়ীতে লুকিয়ে রেখে ভারতের বর্ডার পার করার দায়িত্বে নিয়োজিত রমজান আলী খানকে পুনরায় সদর উপজেলার সভাপতি করার প্রক্রিয়াকেও আমরা তীব্র নিন্দা করি।
তিনি বলেন, সংবাদ সম্মেলনে আসার পথে একদল উশৃঙ্খল যুবক আমাকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেছিল। সংবাদ সম্মেলন বানচাল করাই তাদের উদ্দেশ্য ছিল। আমরা ধৈর্য্য ধরে পরিস্থিতির মোকাবেলা করেছি। উশৃংঙ্খল যুবকদের তালিকা করে তিনি পুলিশ সুপারের কাছে দেবেন ও বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানাবেন।