গাজীপুর থেকে সরে যাবেন জাসদ প্রার্থী: নাসিম

5
0

গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের জোটের শরিকরা সমর্থন দিয়েছে। ফলে গাজীপুরে আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া জাসদের রাশেদুল হাসান রানা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেবেন।
শুক্রবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোটের শরিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান ১৪ দলের মুখপাত্র আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিম।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘১৪ দল গাজীপুরে জাহাঙ্গীর আলম এবং খুলনায় তালুকদার আবদুল খালেককে বিজয়ী করতে এক সাথে হয়ে কাজ করবে। যদি কেউ এর মধ্যে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকে তাহলে সময়মত তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেবে। একই সাথে ১৪ দল ছোট পরিসরে কমিটি গঠন করে নির্বাচনী এলাকায় কাজ করবে।’

আগামী ১৫ মে দুই মহানগরে ভোট হবে। আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে দুই মহানগরে আওয়ামী লীগ ও বিএনিপর এই লড়াইয়ের দিকে দৃষ্টি থাকবে সারা দেশের। এর মধ্যে গাজীপুরে আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে বিএনপির হাসান উদ্দিন সরকার এবং খুলনায় আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেকের সঙ্গে বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জুর লড়াই হবে।

খুলনায় খালেক ছাড়া আওয়ামী লীগের শরিক অন্য কোনো দল থেকে প্রার্থী নেই। তবে গাজীপুরে জাহাঙ্গীরের পাশাপাশি জাসদের রাশেদুল হাসান রানা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তার প্রার্থিতা বহালও আছে। তবে ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সুযোগ আছে।

গাজীপুরে জাসদের রানা প্রার্থিতা তুলে নেবেন, সেটা অনুমিতই ছিল। এর আগে ২০১৬ সালের শেষ দিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও মেয়র পদে প্রার্থী দিয়ে শেষ সময়ে তা তুলে নিয়েছিল জাসদ।

নাসিম বলেন, ‘যেহেতু সিটি করপোরেশনের নির্বাচনগুলো জাতীয় নির্বাচনের আগে, তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে জয় করার জন্য দেশবাসীকে আহ্বান জানাব।’

‘বিএনপি-জামায়াত বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে বারবার উসকে দিতে চেয়েছে। নির্বাচন হচ্ছে জনগণের রায় দেয়ার অধিকার। যারা বারবার চেয়েছিল জনগণের অধিকার ছিনিয়ে নিতে চেয়েছিল তাদেরকে পরাজিত করতে হবে।’

উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য জনগণের প্রতিও আহ্বান জানান ১৪ দলের মুখপাত্র নাসিম।

প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন

যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত টাইমস ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালী নেতাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থান পাওয়ায় তাকে ১৪ দলের পক্ষ থেকে অভিনন্দনও জানান নাসিম। বলেন, ‘শুধু শেখ হাসিনার সম্মানিত হননি, সম্মানিত হয়েছে দেশের মানুষ, দেশের জনগণ।’

‘তিনি (শেখ হাসিনা) আমাদের বারবার সম্মানিত করেছেন। দেশকে উন্নতির শীর্ষে নিয়ে যাচ্ছেন। শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে আজ সাহসী নেতৃত্ব উপাধি পেয়েছেন।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি নেত্রীর আদালতের মাধ্যমে জেলে গিয়েছেন। আদালতের মাধ্যমেই তিনি বের হবেন। আমরা চাই তারা আগামী নির্বাচনে আসুক।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের আন্দোলনের হুমকি সমালোচনা করে নাসিম বলেন, ‘তাহলে কি বিএনপি আইন আদালতের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেছে? একজন রাজনৈতিক নেতার এধরনের বক্তব্য হতে পারে না। এটা তাদের হীনম্মন্যতার পরিচয়।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত কুমার নন্দী, উপ-দপ্তর সম্পাদক  বিপ্লব বড়ুয়া , সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়াসহ জোটের নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রবাসী সরকার গঠনের ‘মুজিবনগর দিবস’ উপলক্ষে আগামী ২৬ এপ্রিল রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে ১৪ দলের পক্ষ সমাবেশ করা হবে বলেও জানান নাসিম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here