ব্যবসা করতে আসিনি, দেশ গড়তে এসেছি : প্রধানমন্ত্রী

29
0

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা সরকার গঠনের পর থেকে সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশের নদীপথগুলো যেন আবার চালু হয়, আমরা সে পদক্ষেপ নিয়েছি। আমরা ব্যবসা করতে আসিনি, দেশ গড়তে এসেছি।

রোববার দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চারটি উভচর ড্রেজার, মুন্সীগঞ্জ-গজারিয়া ফেরি টার্মিনাল ও সার্ভিস, চারটি কনটেইনার ক্যারিয়ার ভেসেল ও দুটি ইউটিলিটি ফেরির উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সরকার গঠনের পর থেকে সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা ব্যবসা করতে আসিনি, দেশ গড়তে এসেছি। ১৯৭৫-এর পর যেসব সরকার ক্ষমতায় এসেছে, তারা বিভিন্ন সময়ে নিজেদের ক্ষমতা ব্যবহার করে ব্যবসা-বাণিজ্য করেছে। কিন্তু আমরা জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, ‘পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী, ইছামতি-চারটি নদী চলে গেছে মুন্সীগঞ্জের ওপর দিয়ে। এ অঞ্চলের জন্য নদীপথ গুরুত্বপূর্ণ। তাই ড্রেজিং করে নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করা হচ্ছে। এছাড়াও দক্ষিণাঞ্চলের জন্য আরও একটি শিপইয়ার্ড তৈরির পরিকল্পনা সরকারের আছে।

মুন্সীগঞ্জের উন্নয়নের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আলুসহ এখানকার অন্যান্য উৎপাদিত ফসলকে কাজে লাগানোর জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করা হচ্ছে। পদ্মাসেতু হওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্ব আরও বেড়ে যাবে। নৌপথগুলো আবারও ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে সচল করা হলে খুব অল্প খরচে পণ্য পরিবহন করা যাবে।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন সরকারের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে খুলনা শিপইয়ার্ডকে একসময় বিএনপি সরকার পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছিল, আমরা নৌবাহিনীর হাতে সেটা তুলে দিয়েছি। আজ সেখান থেকে যুদ্ধজাহাজ পর্যন্ত তৈরি হচ্ছে। বিএনপি আমলে মোংলা বন্দর বন্ধ করে দিয়েছিল, আমরা তা আবারও চালু করেছি।

দেশকে এগিয়ে নিতে সরকার ধাপে ধাপে বিভিন্ন বাস্তবমুখী প্রকল্প হাতে নিচ্ছে এবং তা বাস্তবায়ন করছে।মুন্সীগঞ্জ-পাটুরিয়া ফেরি সার্ভিস চালু ও নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নতুন ৪টি ড্রেজার চালুর ঘোষণা দেন শেখ হাসিনা। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুড়িগ্রামের শেখ হাসিনা ধরলা সেতুর উদ্বোধন করেন।