বিশ্বের ৬৫টি দেশে ২৬৫টি ভুয়া নিউজ সাইট চালাচ্ছে ভারতীয় গোষ্ঠী

40

বিশ্বের ৬৫টি দেশে ২৬৫টিরও বেশি ভুয়া নিউজপোর্টাল চালাচ্ছে একটি ‘ভারতীয় প্রভাবশালী নেটওয়ার্ক’। ভারত-পাকিস্তানসহ উপমহাদেশের বিভিন্ন ঘটনার বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ও বিশ্ববাসীকে বিভ্রান্ত করতে এই নিউজপোর্টালগুলো পরিচালিত হচ্ছে।

ইউরোপভিত্তিক বেসরকারি সংস্থা ডিজইনফোল্যাব এক গবেষণা কার্যক্রম শেষে এই তথ্য জানিয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ), তার সদস্য দেশ, অজস্র প্রতিষ্ঠান ও মূল্যবোধকে টার্গেট করে ‘বাস্তবধর্মী ভুল তথ্য ছড়ানোর’ কর্মকাণ্ড ঠেকাতে এবং এ বিষয়ে গবেষণাকাজ করে ডিজইনফোল্যাব।

গবেষণা প্রতিবেদনে জানানো হয়, ওই গোষ্ঠীটি যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, সুইজারল্যান্ড, বেলজিয়ামসহ ৬৫টি দেশে ভুয়া নিউজপোর্টাল চালাচ্ছে। বেশিরভাগের নামই অধুনালুপ্ত কোনো স্থানীয় পত্রিকা বা পেশাদার কোনো সংবাদমাধ্যমের নামের ওপর ছলচাতুরি করে রাখা। এসব ভুয়া নিউজের পোর্টালে কেসিএনএ, ভয়েস অব আমেরিকা ও ইন্টারফ্যাক্সের মতো খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানের খবর পুনঃপ্রকাশ করে পাঠককে কাছে টানারর চেষ্টা করা হয়।

ভুয়া পোর্টালের মধ্যে নাম রয়েছে- ইপিটুডে.কম, দ্য মিরর অব অস্ট্রেলিয়া.কম, দ্য টাইমস অব সিলন.কম, দ্য হুভার গ্যাজেট.কম, দ্য সিয়াটল স্টার.কম, মিয়ামি ভ্যালি চ্যানেল.কম, টাইমস অব জেনেভা.কম এবং দ্য ডাবলিন গ্যাজেট.কম।

‘ইপিটুডে.কম’ ওয়েবসাইটের ওপর গবেষণা করে দেখা যায়, এটি নিজেকে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের মাসিক সংবাদ সাময়িকী বলে পরিচয় দিয়ে এলেও এতে পাকিস্তানের সংখ্যালঘু এবং ভারত-সংশ্লিষ্ট কিছু বিষয়ে এমন নিবন্ধ রয়েছে, যা অপ্রত্যাশিতই মনে হয়।

২০১৯ সালের অক্টোবরে ইপিটুডেকে ‘লবি গোষ্ঠী’ বলে আখ্যা দিয়েছিল ইইউর ডিজইনফরমেশন টাস্ক ফোর্সের একটি উইং।

ইপিটুডে.কমের মতোই অন্য পোর্টালগুলোতেও ভারত-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিবেদনের পাশাপাশি পাকিস্তানবিরোধী মনোভাব তৈরিতে সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

ডিজইনফোল্যাব আরও জানায়, তাদের গবেষণায় দেখা গেছে ইপিটুডে ভারতীয়রা চালাচ্ছে, তাদের সঙ্গে রয়েছে বিভিন্ন পর্যায়ের চিন্তাবিদদের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক, অনেক এনজিও ও শ্রীবাস্তব গ্রুপের কিছু কোম্পানি। অন্ধকার জগতের অনলাইন মিডিয়া ‘নিউদিল্লি টাইমস’ এবং ইন্টারনশ্যানাল ইনস্টিটিউট ফর নন-অ্যালাইনড স্টাডিজের (আইআইএনএস) মতো কথিত গবেষণা প্রতিষ্ঠানের আইপি অ্যাড্রেস হিসেবেও নয়াদিল্লিভিত্তিক শ্রীবাস্তব গ্রুপের আইপি দেখাচ্ছে।

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদায় ভারতের সংবিধানে সংরক্ষিত অনুচ্ছেদ বাতিলের পর সেখানে সরকারের অঘোষিত অবরোধ জারির পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি পরিস্থিতি দেখতে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ২৭ সদস্যকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল আইআইএনএসই। অথচ এই সংস্থার ওয়েবসাইটের আইপির সঙ্গে ভুয়া নিউজের কিছু সাইটের আইপি মিলে যাচ্ছে বিধায় ‘প্রভাবশালী নেটওয়ার্ক’ নিয়ে সন্দেহ আরও ঘনীভূত হচ্ছে বিভিন্ন মহলে।