রুপক নাট্য গোষ্ঠীর ৩৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সংবর্ধিত হচ্ছেন তরুন সংগঠক দিলীপ গৌর

0

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের অন্যতম গ্রুপ থিয়েটার সংগঠন রুপক নাট্য গোষ্ঠীর ৩৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে সংবর্ধনা দেয়া হচ্ছে তরুন সংগঠক দিলীপ গৌর কে।

সোমবার সন্ধ্যা ৭ টায় শহীদ এম মনসুর আলী অডিটরিয়ামে রুপক নাট্য গোষ্ঠীর ৩৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজন করা হয়েছে আলোচনা সভা,গুণিজন সংবর্ধনা,মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বিশেষ নাটক এবং নৃত্যানুষ্ঠান। এবারে গুণিজন হিসেবে সংবর্ধিত হচ্ছেন তরুন সংগঠক দিলীপ গৌর। তিনি সিরাজগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও সিরাজগঞ্জ সাংস্কৃতিক ফোরামের সাধারন সম্পাদক ,সিরাজগঞ্জ নাট্য ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক,নাট্য নিকেতন’র সভাপতি এবং কলেজ থিয়েটারের প্রধান কর্ণধার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দিলীপ গৌর ১৯৮৬ সালের ১৫আগষ্ট ফজলুল হক রোডে জন্ম গ্রহন করেন । পিতা স্বর্গীয় রাজা রাম গৌর ছিলেন জাহান আরা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক। ৫ ভাই এবং ১ বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট। তিনি ২০০১ সালে জাহান আরা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস এস সি,২০০৩ সালে ইসলামিয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচ এস সি এবং সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ থেকে হিসাব বিজ্ঞানে স্নাতক এবং মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি স্কুল জীবন থেকেই নাটকের সাথে যুক্ত হন। ১৯৯৬ সালে জাহির রায়হান থিয়েটারের প্রযোজনা ইমরান মুরাদ নির্দেশিত নাবালক নাটকে অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে মঞ্চ নাটকে যুক্ত হন। সিরাজগঞ্জের নাট্য সংগঠন ইমরান মুরাদ দিলীপ গৌরের নাট্য গুরু। পরবর্তীতে ২০০০ সালে তিনি জহির রায়হান থিয়েটার ত্যাগ করে আমির হোসেন সুরুজের শিশু কিশোর নাট্য মঞ্চে যোগদান করেন। পরবর্তী দলের নাম পরিবর্তন হয়ে থিয়েটার মঞ্চ হলে তিনি সেখানকার সাংগঠনিক পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন।

থিয়েটার মঞ্চের প্রধান পরিচালক আমির হোসেন সুরুজের কাছ থেকে তিনি নাটকের নির্দেশনা এবং সংগঠনিক দক্ষতা অর্জন করেন। পরবর্তীতে ২০০৪ সারে এক ঝাক শিশু,কিশোর এবং তরুন দের নিয়ে মাত্র ১৮ বছর বয়সে নিজেই প্রতিষ্ঠা করেন নাট্য নিকেতন নামে একটি নাট্য সংগঠনের। তার নেতৃত্বে নাট্য নিকেতন এগিয়ে চলেছে দূর্বার গতিতে। নাট্য নিকেতন পিপলস থিয়েটার এবং বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সদস্য পদ অর্জন করেছে। দিলীপ গৌর মঞ্চে অভিনয়ের পাশাপাশি নাটকের নির্দেশনা এবং নাটক লিখে থাকেন। তিনি এ পর্যন্ত ২৮ টি নাটকে অভিনয় করেছেন। নির্দেশনা দিয়েছেন ৩০ টি নাটকের,রচনা করেছেন ৮ টি নাটক এবং গল্প থেকে নাট্যরুপ দিয়েছেন ৪ নাটকের। তার লেখা ও নির্দেশিত নাটক বাংলাদেশের বিভিন্ন মঞ্চের পাশাপাশি বাংলাদেশ টেলিভিশনের কিশোর মঞ্চ অনুষ্ঠানে মঞ্চায়িত হয়েছে। সম্প্রতি ইতিহাস ভিত্তিক দুই টি নাটক তিনি লিখেছেন যা এখনো মঞ্চায়িত হয়নি। এশটি ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন নিয়ে লেখা নাটক ’কিশোর ক্ষুদিরাম। আরেক টি বাংলাদেশে ব্রিটিশ শাষন থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধু হত্যার ইতিহাস নিযে লেখা নাটক’সিরাজ থেকে মুজিব। সিরাজ থেকে মুজিব নাটক টি মুজিববর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু নাট্যাৎসবের উদ্ধোধনী দিনে ২৭ মার্চ নাট্য নিকেতন নাটক টি মঞ্চায়ন করবে।

তার অভিনিত নাটক গুলো হলো নাবালক,রাজা ও রাজদ্রোহী,চেতনায় আগুন,আসমানী,এইডস,সংবাদ কার্টুন,তোতা কাহিনী,আয়না, হাম্বা,৭১’র ট্রাজেডি,এই দিন দিন নয়,কুরিয়ার সার্ভিস,বিন্দিয়া,কবর,দুর্ণিতী বাজের ভেলকি, খেলোড়ী, কফিন, কৃষক গঞ্জের হাট,টোকাই সংবাদ,চেতনায় একুশ,চেতনার ফুল,যুদ্ধ সন্তান,ইভটিজিং,মহামায়া ,একটি তুলশী গাছের জীবনী,শ্রী ঘড় দর্শন,ভুতের ভয়।
তার নির্দেশিত নাটকগুলো হলো,রাজা ও রাজদ্রোহী,তোতা কাহিনী,আয়না, হাম্বা,৭১’র ট্রাজেডি,এই দিন দিন নয়,কুরিয়ার সার্ভিস,বিন্দিয়া,কবর,দুর্ণিতী বাজের ভেলকি, খেলোড়ী, কফিন,টোকাই সংবাদ,চেতনায় একুশ,চেতনার ফুল,যুদ্ধ সন্তান,ইভটিজিং,মহামায়া ,একটি তুলশী গাছের জীবনী,শ্রী ঘড় দর্শন,ভুতের ভয়,সীতার বনবাস,ভয় নাই বন্যায়,টিকটক,বট গাছের ভুত,ছুটি,রাজাকারের প্রত্যাবর্তন,ইতিহাস কথা বলে। তার লেখা নাটক দুর্ণিতী বাজের ভেলকি,চেতনায় একুশ,একুশের ফুল,রাজা কারের প্রত্যাবর্তন,ইভটিজিং,কফিন, বটগাছের ভুত এবং টিকটক। গল্প ও কবিতা থেকে নাট্যরুপ দিয়েছেন ছুটি,মহামায়া,দু’বিঘে জমি এবং একটি তুলশী গাছের জীবনী। তিনি সিরাজগঞ্জ সাংস্কৃতিক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে একজন এবং এই সংগঠনের প্রথিষ্ঠা কালীন সময়ে সদস্য সচীব এবং বর্তমানে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

নাটকের অভিনয়,আলোক সজ্জা,সংগঠনিক নেতৃত্ব,নাট্যকারের কর্মশালা করেছেন। বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মাহ পরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর নিকট থেকে তিনি সাংগঠনিক দক্ষতা অর্জন করেছেন। এবং সার্বক্ষনিক তার পরামর্শে সংগঠন পরিচালনা করেন। নাট্য নিকেতনের আয়োজনে তিনি সিরাজগঞ্জে ৩ বার জাতীয় মানের নাট্যোৎসবের আয়োজন করেছেন। তিনি তার পরিশ্রম ও সাংগঠনিক দক্ষতার কারনে সকলের আস্থা অর্জন করে নিজের সংগঠনের পাশাপাশি সিরাজগঞ্জের সাংস্কৃতিক অঙ্গন কে সামনে এগিয়ে নেয়ার জন্য কাজ করছেন।

কর্মময় জীবনে প্রথমে মল্লিকা ছানাউল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন সেখান থেকে অব্যহৃতি নিয়ে বর্তমানে তিনি বেসরাকারি টেলিভিশন ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত আছেন। সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তার অবদানের জন্য রুপক নাট্য গোষ্ঠী তাকে সংবর্ধিত করছে। আজকের অনুষ্ঠান উদ্ধোধন করবেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আব্দুল বারী শেখ।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি এ্যাডভোকেট কে এম হোসেন আলী হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিথ থাকবেন বেলকুচি পৌরসভার মেয়র আশানুর বিশ্বাষ,জেলা কালচারাল অফিসার মাহমুদল হাসান লালন,নাট্য ব্যাক্তিত্ব আসাদ উদ্দিন পবলু,বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশানের প্রেসিডিয়াম সদস্য মমিন বাবু,সিরাজগঞ্জ নাট্য ফেডারেশনের সভাপতি হীরক গুণ। সভাপতিত্ব করবেন সংগঠনের সভাপতি রাসেল আহমেদ শিবলী। অনুষ্ঠানে সম্মাননা স্মারক দেয়া হবে রুপক নাট্য গোষ্ঠীর মহিলা সম্পাদিকা অভিনেত্রী জড়িনা পারভীন কে। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে গোলজার হোসেন রচিত এবং রাসেল আহমেদ শিবলী নির্দেশিত নাটক ‘কদম তলীর কালাচাঁন’ মঞ্চায়িত হবে। সবশেষে আনন্দধারা নৃত্যকলা একাডেমির পরিবেশনায় নৃত্যানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।