কৃষানের আবাসস্থল হবে স্কুল-কলেজে, ধান বিক্রয় হবে নির্দষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে

3

মাসুম বিল্লাহ, মাগুরা প্রতিনিধিঃ
মাগুরার শালিখায় নোভেল করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ধান কাটা ও ধান বিক্রির জন্য নেয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ গতকাল সোমবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন উপজেলা প্রশাসন সেখানে লেখা ছিল জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থপনা কমিটির অনুমতিক্রমে উপজেলা   দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির এক সভায় শ্রমিক সংগ্রহ থেকে শুরু করে ধান বিক্রির জন্য নেয়া হয়ছে নানা পদক্ষেপ জমির মালিকদের জন্য দেয়া হয়েছে কতকগুলো নির্দেশনা যেখানে বলা হয়েছে এ বছর কোন হাট বসবে না তাই স্থানীয় পর্যায়ের লোকবল  কাজে লাগাতে হবে। জমির মালিককে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সংগ্রহ করতে হবে কৃষাণ তাতে ব্যর্থ হলে স্বেচ্ছাসেবক গ্রামপুলিশ অন্য যে কোন মাধ্যমে ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির নিকট চাহিদা উপস্থাপন করবে এজন্য ইউনিয়নভিত্তিক হটলাইন নাম্বারও দেওয়া হয়েছে। বহিরাগত    শ্রমিকরা হাটবারে আসলে তাদের আড়পাড়া   ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির নিকট প্রেরণ করা হবে সেখান থেকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির নিকট প্রেরণ করা হবে। জমির মালিকরা যদি গ্রামভিত্তিক শ্রমিক আনতে চাই সেক্ষেত্রে ধনেশ্বরগাতি ইউনিয়নের সিংড়া- তিলখড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠসহ উপজেলা আড়পাড়, শালিখা, শতখালী, গঙ্গারামপুর,বুনাগাতী, তালখড়িসহ   ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গনে হাটের দিন ব্যতীত এ শ্রম বাজার বসবে।শ্রমিকদের  থাকার জায়গা হবে স্কুল ও কলেজ গুলিতে।  তাদের সাথে আনা গরু-মহিষের গাড়িও থাকবে সেখানে। স্কুল-কলেজ নির্ধারন করবেন ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি। আগত শ্রমিকরা যথাসম্ভব নিজেরা রান্না করে খাবে এবং তাদের গোসলের ব্যবস্থা থাকবে আলাদা। পৃথক থাকবে থালা বাটি গ্লাস এবং ব্যবহার করার যাবতীয় জিনিস। তাদের পরিষ্কার থাকার ব্যাপারে পর্যাপ্ত সাবান ও জীবাণুনাশক সরবরাহ করবে উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি। তাদের সাবান দিয়ে হাত ধোয়ারও ব্যবস্থা রাখা হবে। ধান কাটা-মাড়াইসহ ইত্যাদি কাজে তাদের থেকে স্থানীয়রা নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করবে এটা নিশ্চিত করবে ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি। ধান বিক্রির ক্ষেত্রে হাটবার ব্যতীত অন্য দিনে বড় রাস্তার পাশে ৫০ ফুট দূরত্বে   লাল পতাকা বেঁধে ভ্যান,নসিমন,ধানবাহী গাড়ি রাখা হবে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্রেতা-বিক্রেতা স্লিপের মাধ্যমে ধান বিক্রয় ও অর্থ হস্তান্তর করবে।