সংকটময় সময়ে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বাঁচান

58

খান মেহেদীঃ

বড়ই স্বার্থপরের মত শোনাবে। সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে তবুও দাবিটি তুলছি। আমার প্রস্তাব: অবিলম্বে কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় একটি পরীক্ষা কেন্দ্র (টেস্টিং সেন্টার) সংবাদ মাধ্যম কর্মীদের জন্য নির্ধারণ [ডেডিকেটেড] করা হোক।

কোন সংবাদমাধ্যম কর্মী পরিচয়পত্র দেখিয়েই সেখানে পরীক্ষা করে নিশ্চিত হতে পারেন যে, তিনি কোভিড-১৯ আক্রান্ত কিনা।

একটি হাসপাতালও নির্ধারণ [ডেডিকেটেড] করা হোক, যেখানে একইভাবে একজন সংবাদমাধ্যমকর্মী চিকিৎসা সহায়তা নিতে পারবেন।

এমন না যে, এই পরীক্ষা কেন্দ্র বা হাসপাতাল শুধুই সাংবাদিক বা সংবাদমাধ্যম কর্মীদের জন্য নির্ধারিত থাকবে। সবার জন্যই এ সব উন্মুক্ত থাকবে, শুধু সংবাদ মাধ্যম কর্মীরা এখানে একটু অগ্রাধিকার পাবেন।

সম্প্রতি একজন সাংবাদিকের মৃত্যু এবং বেশ কয়েকজন আক্রান্ত হওয়ার পর নিজে কোভিড-১৯ আক্রান্ত কিনা এটি পরীক্ষা করার একটি চাহিদা সংবাদ কর্মীদের মধ্যে তৈরি হয়েছে। নানা হাসপাতালে ঘুরে যে অবস্থায় খোকন মারা গেল, তাতে এমন একটি চাহিদাও তৈরি হয়েছে যে, আক্রান্ত কোন সংবাদ কর্মী যাতে প্রয়োজন হলে সরাসরি সেই নির্ধারিত হাসপাতালেই যেতে পারেন। প্রাথমিক ভাবে এই ব্যবস্থা ঢাকায় চালু করে পরে ঢাকার বাইরে সম্প্রসারণ করা যায়।

কোভিড-১৯ যুদ্ধে আমরা সংবাদকর্মীদের সন্মুখসারির যোদ্ধা বলছি, আসলেও তাই। কিন্ত বিনয়ের সঙ্গে বলি: এই যুদ্ধে সন্মুখ সারির অন্য যোদ্ধাদের তুলনায় সাংবাদিক বা সংবাদমাধ্যম কর্মীদের জন্য বিশেষ কিছু করা হয় নাই।

অনুগ্রহ করে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের বাঁচান, তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে সহায়তা দিন। পেশাগত দায়িত্ব পালনের ডাকেই সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যম কর্মীরা মাঠে। কোন কিছু না পেলেও জীবন-মৃত্যুকে পায়ের ভৃত্য করে আমার প্রিয় সহকর্মীরা এই দায়িত্ব পালন করবেন, আমি নিশ্চিত।

পেশাজীবী-শ্রমজীবীদের জীবন, জীবিকা, নিরাপত্তা ও মর্যাদা নিশ্চিত করা। এটি নিশ্চিত করা রাষ্ট্রেরই দায়িত্ব। এই বিশেষ পরিস্থিতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা আরও জরুরি।